এলাকাভিত্তিক কঠোর লকডাউনের সিদ্ধান্ত!

নিজস্ব সংবাদদাতা, ঢাকা;  টানা ৬৬ দিনের ছুটি শেষে সীমিত পরিসরে সচল হয়েছে অফিস-আদালত। ঘুরছে কলকারখানা ও গাড়ির চাকা। কর্মে ফিরেছে শ্রমজীবী মানুষ। স্থবির হয়ে পড়া অর্থনীতিতে এসেছে গতি। নির্ভর করতে হচ্ছে না সরকারি ত্রাণের উপর।

  • করোনা ভাইরাসের কারণে সাধারণ ছুটি তথা লকডাউনের মধ্যে সংক্রমণ পরিস্থিতি, চিকিৎসা ব্যবস্থা, কর্মহীন মানুষের খাদ্য সংস্থানসহ এবার সব অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সামনে এগোতে চায় সরকার। এজন্য চলতি বছরের বাজেটেও স্বাস্থ্যসহ প্রতিটি খাতেই করোনা পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

তাই আর গোটা দেশ লকডাউন নয়, অর্থনীতি বাঁচিয়ে অধিক সংক্রমিত ‘রেড জোনগুলোতে’ কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে সরকার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

  • এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে আজ শুক্রবার (১২ জুন ২০২০ ) ছুটির দিনে সরকারের পাঁচজন মন্ত্রী, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি এবং চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র, মন্ত্রিপরিষদ সচিব এবং প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব অনলাইন বৈঠক করেন। বৈঠকে অধিক সংক্রমিত এলাকাগুলোতে কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে জোর দেওয়া হয়।

দীর্ঘ সাধারণ ছুটি শেষে গত ৩১ মে থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত সীমিত পরিসরে বিধি মেনে অফিস আদালত এবং গণপরিবহন চালু রাখার সিদ্ধান্তই নেয় সরকার। এই সিদ্ধান্তই বাস্তবায়ন হবে ১৫ জুনের পরেও। সরকার ফিরবে না আর দেশব্যাপী লকডাউনে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জীবন ও জীবিকা- দুটো নিয়েই এগোচ্ছেন। তিনি জোনভিত্তিক লকডাউনের সিদ্ধান্ত দিয়েছেন। এসব বিষয় আলোচনা হয় পাঁচ মন্ত্রীর বৈঠকে।

  • স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের সভাপতিত্বে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন, আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক সভায় অংশ নেন।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন ছাড়াও মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব ড. আহমেদ কায়কাউসসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এতে যুক্ত ছিলেন।

  • এ বিষয়ে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বিকেলে বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ঘোষিত রেড জোন জায়গাগুলো লকডাউন থাকবে। রেড জোনগুলোতে স্পেশাল ট্রিটমেন্ট হবে। এসব এলাকায় স্পেশাল কেয়ার থাকবে, যাতে মুভমেন্ট না থাকে। রেড জোনগুলোতে অফিস বন্ধ থাকবে।

তিনি বলেন, এসব এলাকায় কঠোরভাবে লকডাউন বাস্তবায়ন করা হবে। যাদের খাবার প্রয়োজন তাদের খাবার বিতরণ, সামর্থ্যবানদের কেনাকাটার ব্যবস্থা করা হবে। অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিসসহ জনসাধারণের প্রয়োজনীয় সব সুবিধা নিশ্চিত থাকবে।

  • ফরহাদ হোসেন বলেন, এসব এলাকায় ১৪-২১ দিন এমন লকডাউন থাকবে, যাতে সংক্রমণ বিস্তৃত না হয়। সংক্রমণের হটস্পট ঢাকা, উল্লেখ করে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন এখানে আক্রান্তের হার ৭২ শতাংশ। এরপরেই রয়েছে চট্টগ্রাম। আর সারা দেশে ১৬ শতাংশ। এজন্য ঢাকা এবং চট্টগ্রাম কেই অধিক গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

আগামী ১৫ জুনের পর কী সিদ্ধান্ত হবে- প্রশ্নে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা যে সীমিত পরিসরে চলার ব্যবস্থা নিয়েছি আপাতত এ সিদ্ধান্ত থাকছে।

  • বৈঠকে অংশ নিয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেন, সারাদেশে যখন এলাকাভিত্তিক লকডাউন ঘোষণা করা হবে তখন সব জায়গায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ন্যস্ত করা কঠিন হয়ে পড়বে। কারণ করোনা ছাড়াও অন্য আইন-শৃঙ্খলাজনিত বিষয় সামলাতে গিয়ে শুধু করোনা প্রতিরোধে এত সংখ্যক জনবল পদায়ন করা কঠিন হবে। সেজন্য জনপ্রতিনিধিদের অংশগ্রহণ এটা কার্যকরী করতে সহজ হবে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী জোনভিত্তিক লকডাউন বাস্তবায়নে জেলা থেকে শুরু করে ইউনিয়ন পর্যায়ে গঠিত কমিটি সক্রিয় করার আহ্বান জানান।

এদিকে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এর করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনের সর্বশেষ (১২  জুন ২০২০) তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৬ হাজার ৯৫০টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ১৫ হাজার ৯৯০টি নমুনা। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো চার লাখ ৭৩ হাজার ৩২২টি। নতুন নমুনা পরীক্ষায় করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে আরও তিন হাজার ৪৭১ জনের মধ্যে। ফলে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৮১ হাজার ৫২৩ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে মারা গেছেন আরও ৪৬ জন। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হলো এক হাজার ৯৫ জনের। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫০২ জন। ফলে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন মোট ১৭ হাজার ২৫০ জন।

আমাদের বাণী ডট কম/১২ জুন ২০২০/ডিএ 

About আমাদের বাণী

Check Also

গাজায় ইসরাইলের আগ্রাসন, নিহত বেড়ে ১৪৩

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় আজ শনিবার সকালেও বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। গাজা থেকে হামাসও ইসরায়েলে রকেট …